1. admin@bd24voice.com : BD24VOICE.COM : BD24 VOICE
  2. bd24voice@hotmail.com : BD 24 VOICE : BD 24 VOICE
  3. tusher719@gmail.com : BD 24 VOICE : BD 24 VOICE
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের চলমান কাজ শেষ হওয়ার পর পরবর্তী কাজ পাবে ঘাসের চাষ শিখতে ৩২ কর্মকর্তার বিদেশ সফর প্রকল্প অনুমোদন পেয়েছে কিশোরগঞ্জ জেলা কৃষক লীগের আনন্দ শোভাযাত্রা কিশোরগঞ্জ প্রেসক্লাব থেকে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ, দায়িত্বে জেলা প্রশাসক অপমানের বিচার না পেলে আত্মহত্যার হুমকি দুই মুক্তিযোদ্ধার কিশোরগঞ্জে কটিয়াদী পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে বাইডেনকে মানতে নারাজ ভ্লাদিমির পুতিন কিশোরগঞ্জে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণ ঢাকা মহানগর পুলিশের মাদকাসক্ত ১০ পুলিশ সদস্যকে স্থায়ীভাবে চাকরীচ্যুত করা হয়েছে এক বাংলাদেশির বিরুদ্ধে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের ৫০ হাজার ডলার ক্ষতিপূরণ মামলা

সিলেটে গণধর্ষণ মামলার আরেক আসামি রবিউল গ্রেফতার

নিজেস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৮৯ বার পড়া হয়েছে

এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ধর্ষণের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার আসামির রবিউল ইসলাম ওরফে হাসানকে (২৫) রবিবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের একটি টিম।

হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ উল্লাহ নিশ্চিত করেছেন ধর্ষক রবিউল ইসলাম ওরফে হাসানকে গ্রেফতারের তথ্য। এ নিয়ে গণধর্ষণের ঘটনার এজাহারভুক্ত ছয় আসামির মধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এর আগে রবিবার সকালে সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমানকে গ্রেফতার করে ছাতক থানা পুলিশ। প্রধান আসামি সাইফুলকে গ্রেপ্তারের একঘন্টা পরে হবিগঞ্জের মাধবপুর থেকে অর্জুন দশকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে শুক্রবার রাত পৌনে আটটা থেকে সাড়ে আটটার দিকে গণধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে। এই ঘটনায় ছয় জনের নাম উল্লেখ করে মোট ৯ জনের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের শিকার তরুণী স্বামী সিলেট শাহপরান থানায় মামলা মামলা দায়ের করেছিলেন। মামলার এজাহারভুক্ত নাম উল্লেখ করা ৬ জন এমসি কলেজে ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে পরিচিত। মামলার এজাহারে নাম উল্লেখিত ৬ জন হলেন সাইফুর রহমান (২৮), তারেকুল ইসলাম ওরফে তারেক আহমদ (২৮), শাহ মাহবুবুর রহমান ওরফে রনি (২৫), অর্জুন লস্কর (২৫), রবিউল ইসলাম (২৫) ও মাহফুজুর রহমান ওরফে মাসুম (২৫)।

মামলার এজাহারের বিবরণ অনুযায়ী, আসামি ধর্ষক সাইফুর রহমানের বাড়ি সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলায়। তাঁর বর্তমান ঠিকানা সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসের তত্ত্বাবধায়কের বাংলা। আরেক আসামি ধর্ষক শাহ মাহবুবুর রহমান ওরফে রনির বাড়ি হবিগঞ্জ সদরের বাগুনিপাড়ায়। তার বর্তমান ঠিকানা ছাত্রাবাসের ৭ নং ব্লকের ২০৫ নাম্বার কক্ষ। আসামি রবিউলের বাড়ি সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় জগদল গ্রামে। অর্জুনের বাড়ি জকিগঞ্জের আটগ্রাম। আরেক ধর্ষক ও আসামি তারেক সুনামগঞ্জ শহরের নিসর্গ আবাসিক এলাকার বাসিন্দা। মামলার নাম উল্লেখিত আসামি মাহফুজুর রহমান ওরফে মাসুমের বাড়ি সিলেট এর কানাইঘাটের গাছবাড়ি গ্রামে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, গত শুক্রবার ধর্ষণের শিকার তরুণী তার স্বামীকে নিয়ে বেড়াতে যান সিলেট এমসি কলেজে। এমসি কলেজে রাস্তার পাশে গাড়ি থামিয়ে তরুনীর স্বামী গিয়েছিলেন সিগারেট কিনতে। ফিরে এসে দেখেন, স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করছেন কয়েকজন তরুণ। স্বামী প্রতিবাদ করলে মারধর করে তাঁদের দুজনকে গাড়িসহ জোর করে তুলে নিয়ে যান ওই তরুণেরা। এমসি কলেজের ছাত্রাবাসের ভেতরে একেবারে শেষ প্রান্তে নেওয়ার পর স্বামীকে একটা স্থানে আটকে রাখেন তাঁরা। তরুণীকে ছাত্রাবাসের ৭ নম্বর ব্লকের একটি কক্ষের সামনে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়। ঘণ্টাখানেক পরে স্বামীকে ছেড়ে দিয়ে ধর্ষকরা এলাকা ত্যাগ করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব