1. admin@bd24voice.com : BD24VOICE.COM : BD24 VOICE
  2. bd24voice@hotmail.com : BD 24 VOICE : BD 24 VOICE
  3. tusher719@gmail.com : BD 24 VOICE : BD 24 VOICE
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের চলমান কাজ শেষ হওয়ার পর পরবর্তী কাজ পাবে ঘাসের চাষ শিখতে ৩২ কর্মকর্তার বিদেশ সফর প্রকল্প অনুমোদন পেয়েছে কিশোরগঞ্জ জেলা কৃষক লীগের আনন্দ শোভাযাত্রা কিশোরগঞ্জ প্রেসক্লাব থেকে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ, দায়িত্বে জেলা প্রশাসক অপমানের বিচার না পেলে আত্মহত্যার হুমকি দুই মুক্তিযোদ্ধার কিশোরগঞ্জে কটিয়াদী পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে বাইডেনকে মানতে নারাজ ভ্লাদিমির পুতিন কিশোরগঞ্জে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণ ঢাকা মহানগর পুলিশের মাদকাসক্ত ১০ পুলিশ সদস্যকে স্থায়ীভাবে চাকরীচ্যুত করা হয়েছে এক বাংলাদেশির বিরুদ্ধে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের ৫০ হাজার ডলার ক্ষতিপূরণ মামলা

এবার ঘাসের চাষ শিখতে বিদেশ যাচ্ছেন ৩২ জন কর্মকর্তা

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত শুক্রবার, ২০ নভেম্বর, ২০২০
  • ১০২ বার পড়া হয়েছে

এবার বিদেশ যাচ্ছেন ৩২ জন কর্মকর্তা ঘাসের চাষ শিখতে। প্রত্যেকের পেছনে ব্যয় হবে ১০ লাখ টাকা করে। এতে মোট বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে ৩ কোটি ২০ লাখ টাকা।

 

আগামী মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে উপস্থাপন করা হচ্ছে ১০১ কোটি ৫৩ লাখ টাকার প্রকল্পটি। এছাড়া অডিও, ভিডিও ও চলচ্চিত্র নির্মাণে চাওয়া হয়েছে ২০ লাখ টাকা।

 

প্রাণীপুষ্টির উন্নয়নে উন্নত জাতের ঘাসের চাষ সম্প্রসারণ ও লাগসই প্রযুক্তি হস্তান্তর শীর্ষক প্রকল্পে এ অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে।

 

মঙ্গলবার একনেক বৈঠকে অনুমোদন পেলে চলতি বছর থেকে ২০২৪ সালের মার্চের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করবে প্রাণিসম্পদ অধিদফতর। তবে এ ধরনের বিদেশ সফরের ব্যয়কে অপচয় ও অপ্রয়োজনীয় বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা।

 

এদিকে প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রতিবেশী দেশের ঘাস উৎপাদন পদ্ধতি এবং প্রক্রিয়া দেখতে এই সফরের প্রয়োজন।

 

ঘাসের চাষ শিখতে বিদেশ সফর প্রসঙ্গে বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির সাবেক সভাপতি ও পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম বলেন, ঘাস চাষ এমন কোনো প্রযুক্তিগত বিষয় নয় যে, বিদেশ যেতে হবে। বরং এই টাকা গবেষণায় ব্যয় করলে দেশ আরও উপকৃত হতো। তাছাড়া যারা চাষ দেখে আসবেন তারা হয়তো বদলি হয়ে যাবেন। কিংবা এই সফরে অপ্রয়োজনীয় অনেক কর্মকর্তাই হয়তো থাকবেন। তাই উন্নয়ন প্রকল্পে এ রকম ব্যয় বাদ দেয়া বাঞ্ছনীয়।

 

এদিকে যে সকল কর্মকর্তারা এই সফরে যাচ্ছেন তাদের আদৌ এত টাকা খরচ করে বিদেশ যাওয়ার প্রয়োজন আছে কিনা সেটি প্রশ্নসাপেক্ষ। তাছাড়া ১০১ কোটি টাকার প্রকল্পে ৩ কোটি টাকার বেশি শুধু বিদেশ সফরেই যদি ব্যয় হয় তাহলে মূল প্রকল্পের কি অবস্থা হবে? শতাংশের হিসাবে এই টাকা হয়তো বড় কিছু নয়, কিন্তু অঙ্কের দিক থেকে তো অনেক বেশি।

 

ঘাসের চাষ শিখতে বিদেশ সফর প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. আবদুল জব্বার শিকদার বলেন, আমাদের দেশে ঘাস চাষ জনপ্রিয় নয়। ফলে গরুর জন্য আলাদা ঘাসের প্রয়োজন সেটি মানুষের ধারণার মধ্যে নেই। এ প্রকল্পের মাধ্যমে উন্নত মানের ঘাস চাষ ছড়িয়ে দেয়া হবে। বেশি বেশি দুধ পেতে হলে উন্নত ঘাসের অবশ্যই প্রয়োজন। বেসরকারি পর্যায়ে যাতে পুষ্টিগুণসম্পন্ন ঘাস পাওয়া যায় সেজন্য প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। এক্ষেত্রে বিশ্বের যেসব দেশে অল্প জমিতে বেশি পরিমাণ এবং পুষ্টিগুণসম্পন্ন ঘাস উৎপাদন হচ্ছে সেগুলোর চাষাবাদ পদ্ধতি দেখতে এবং টেকনিক্যাল কিছু ব্যাপার থাকায় বিদেশ সফরের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

 

তিনি বলেন, ৩২ জনের মধ্যে দেখা যাবে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের ৫ জনের মতো কর্মকর্তা থাকতে পারেন। বাকিরা পরিকল্পনা কমিশন, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় এবং এই প্রকল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব